২৫শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১০ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চুরির অপবাদে রশি দিয়ে পা বেঁধে গাছে ঝুলিয়ে নির্যাতন, ভিডিও ভাইরাল

নিজস্ব প্রতিবেদক।।
কুমিল্লার বরুড়ায় চুরির অপবাদ দিয়ে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে আবদুল হান্নান (২৮) নামে এক যুবককে নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। রশি দিয়ে গাছের সঙ্গে উল্টো করে ঝুলিয়ে ওই যুবককে নির্যাতন করা হয়।

শনিবার (১৬ আগস্ট) সকালে বরুড়া উপজেলার ভাউকসার ইউনিয়নের চৌত্তাপুকুরিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের শিকার ওই যুবক একই এলাকার আবদুল জব্বারের ছেলে।

এ ঘটনার ৫৯ সেকেন্ডের একটি ভিডিও শনিবার বিকেল থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

এদিকে, ওই যুবককে নির্যাতনের ঘটনায় পুলিশ শনিবার (২৬ আগস্ট) রাতে ভাউকসার ইউপির মেম্বার জহিরুল ইসলামকে আটক করেছে। তার নেতৃত্বে ওই যুবককে চোর অ্যাখ্যা দিয়ে নির্যাতন করা হয়।

স্থানীয়রা জানায়, ইউপি সদস্য জহিরুল শনিবার সকালে চৌত্তাপুকুরিয়া মার্কেটের সামনে চৌত্তাপুকুরিয়া গ্রামের হান্নানকে উৎসুক জনতার সামনে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করেন।

তিনি একটি গাছের সঙ্গে ওই যুবককে উল্টো করে ঝুলিয়ে বাঁধেন। এরপর বেত, লাঠি দিয়ে পিটিয়ে নির্যাতন করতে থাকেন।

আটক হওয়ার আগে ঘটনার বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য জহিরুল ফেসবুক একটি পোস্ট করেন। সেখানে তিনি লিখেন- এলাকায় এমন কোনো বাড়ি নাই যে বাড়িতে এদের হাত লাগে নাই।

আটোরিকশা, গরু, দোকান ঘর, মোবাইলসহ অনেক কিছুই চুরির সঙ্গে এরা সংশ্লিষ্ট। তাকে অনেকবার আইনের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু জামিনে বের হয়ে আবার চুরি শুরু করে।

স্থানীয় এলাকার দোকানদার নুরু মিয়া বলেন, শনিবার সকালে আমার দোকান খুলে দেখতে পেলাম আমার সৌরবিদ্যুতের ব্যাটারি নেই। দোকান থেকে ব্যাটারি চুরি হয়ে গেছে।

এই বিষয়ে আলোচনা শুরু হলে স্থানীয় চোর হান্নানকে সন্দেহ হয়। পরে মেম্বার তাকে ডেকে এনে মারধর করেছেন।

এই বিষয়ে স্থানীয় ভাউকসার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আহমেদ জামাল মাসুদ বলেন, আমি ঘটনাটি শুনেছি এবং ফেসবুকে ভিডিওটি দেখেছি। আসলে তাকে এভাবে না বেঁধে পুলিশে হস্তান্তর করা দরকার ছিল।

শনিবার রাতে বরুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ হোসেন বলেন, নির্যাতনের ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর ওই ইউপি সদস্যকে আটক করা হয়েছে।

নির্যাতিত আবদুল হান্নানকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার দেওয়া অভিযোগের ভিত্তিতে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বরুড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাবরিনা আফরিন মুস্তাফা জানান, নির্যাতনের ব্যাপারে পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা নেবে।

তবে নির্বাচিত একজন জনপ্রতিনিধির (ইউপি সদস্য) এমন কর্মকাণ্ডের বিষয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরো দেখুন
error: Content is protected !!