bn বাংলা
৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

করোনাভাইরাসকে ‘জৈব অস্ত্র’ বানানোর পরিকল্পনা হয়েছিল!

নিউজ ডেস্ক
ফাঁস হওয়া একটি চীনা নথিতে এই চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে।

এ ব্যাপারে দ্য অস্ট্রেলিয়ান স্ট্র্যাটেজিক পলিসি ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক পিটার জেনিংস বলেন, ‘ওই নথিকে অস্বীকার করা যায় না। নথি থেকে পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে, করোনাভাইরাসের বিভিন্ন প্রজাতিকে কীভাবে অস্ত্র হিসেবে কাজে লাগানো যায়, সে ব্যাপারেই আলোচনা করেছেন চীনা গবেষকরা।’

‘উইকেন্ড অস্ট্রেলিয়া’ নামে একটি সাপ্তাহিক পত্রিকার হাতে সম্প্রতি সেই নথিটি আসে। নথির তথ্য অনুযায়ী, করোনাভাইরাস মহামারির আগে ২০১৫ সালে চীনের সামরিক বিজ্ঞানীরা করোনাভাইরাসকে যুদ্ধের অস্ত্র হিসেবে পরিণত করা যায় কি না তা নিয়ে আলোচনা করেন।

‘দ্য আনন্যাচারাল অরিজিন অফ সার্স অ্যান্ড নিউ স্পিসিস অব ম্যান-মেড ভাইরাসেস অ্যাজ জেনেটিক বায়োউইপন’ শীর্ষক নথিতে বলা হয়েছে, তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ হলে জৈব অস্ত্রই ব্যবহৃত হবে। আর সে কারণে কোভিড-১৯ মহামারির ৫ বছর আগেই করোনাভাইরাসকে অস্ত্ররূপে তৈরি গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন চীনের সেনাবাহিনীর বিজ্ঞানীরা। সে অনুযায়ী, করোনাভাইরাস আসলে নতুন ধরনের ‘জেনেটিক অস্ত্র’, যাকে কৃত্রিম প্রক্রিয়ায় মারণ ভাইরাসে রূপান্তরিত করা সম্ভব।

এ ব্যাপারে দ্য অস্ট্রেলিয়ান স্ট্র্যাটেজিক পলিসি ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক পিটার জেনিংস বলেন, ‘ওই নথিকে অস্বীকার করা যায় না। নথি থেকে পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে, করোনাভাইরাসের বিভিন্ন প্রজাতিকে কীভাবে অস্ত্র হিসেবে কাজে লাগানো যায়, সে ব্যাপারেই আলোচনা করেছেন চীনা গবেষকরা।’

ফাঁস হওয়া নথি ভুয়া কি না, তা খতিয়ে দেখার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ রবার্ট পটারকে। তিনি জানান, ওই নথি একেবারেই ভুয়া নয়। কিন্তু এতে যা লেখা রয়েছে, তা গবেষকদেরই বিশ্লেষণ করে দেখতে হবে, বিষয়টি কতটা গুরুতর। অন্যদেরকেও বিষয়টি বুঝতে হবে।’

আরো দেখুন
error: Content is protected !!