১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নাজনীন আক্তার’র কবিতা -“বিরহের কাঁটা”

“বিরহের কাঁটা”

নাজনীন আক্তার

এ ডিজিটাল বাংলাদেশে বসেও
একটু একটু করে প্রতিদিন প্রতিনিয়ত
ধূসর রঙের কাগজে তোমায় লিখি,
প্রিয় সে নীল খামে বাসন্তী আল্পনায়
লিখি, ভীষণ ভীষণ মনে পড়ে তোমায়
ঘোর পূর্ণিমার জোয়ারের মোহনায়
ভাসিয়ে নিয়ে যায় নীলগিরি ঝর্ণা ধারায়।

জানি, তোমার এতো ব্যাস্ততায়
আমায় মনে রাখার মতো সময় কোথায়!
আর আমি এতটুকু আশ্চর্য হই না
তোমার ব্যস্ততায়।
বরং অপেক্ষায় থাকি কখন আসবে
মনের সব গ্লানি মুছে দিতে।
সাঝেঁর বেলায় তাকিয়ে ঐ অচিন রাস্তায়।

অক্লান্ত অধীর সুমিষ্ট প্রেম সুধা
স্বচ্ছ কল্পনায় সবকিছু মেনে নিতে পারি;
পারিনা শুধু তোমার পাশে অন্য কোন মানবী
কখনো যদি কোন মানবীর ছায়াও দেখি
অর্থহীন লাগে এ জন্ম আমার
হতাশার কালো মেঘে ঢেকে যায় হৃদয় আকাশ
আমার একাকিত্বের এ শহরে বড় একা আমি
অক্ষত হৃদয় ভেঙে চুরে ক্ষত বিক্ষত করলে
সুন্দর সজীব ধরণীর আলোয়
আজো দেখা হয়নি ঐ মুখোশের আড়ালে
মুখোমুখি দাঁড়ায়ে।

গভীর নিশীথ ঘন রাতে দখিনা কপাট খুলে।
চারিদিক জনশূন্য, প্রকৃতি নিরব
কোথাও কেউ নেই
ঐ দূর থেকে আঁধারে ভেসে আসে
সাম্যের বাঁশির সুর
আমার দুয়ার শত সহস্র অভিমানে ঠাঁসা
যখনই তোমায় ছুঁয়ে দেখা হবে
চিত্ত হবে সেদিন শুদ্ধ।
কত যে প্রহর কাটে দোসর রাতে অন্তহীন পথে
নীরব আর্তনাদে পরিত্যক্ত কারাগারে।

শঙ্কিত চিহ্নে ছাপ স্মৃতিময়
মুহূর্তগুলো ফ্রেমবন্দী হবে
নিরাশার বালুচরে প্রজাপতির নিঃশ্বাসে।
আবেগের শেষ অবগাহনে একান্ত আদরে
নির্বাক অধীনতায় অবেলার এক গল্প।
আজ শুধুই দেখি জীবনে বিরহের কাঁটা ।

রাত,২ঃ৪৫ মিনিট।
৩/৬/২০২১ ইং
গেন্ডারিয়া, ঢাকা।

আরো দেখুন
error: Content is protected !!