১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কুমিল্লায় ‘সততা হাসপিটাল’ ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টার সিলগালা; লাখ টাকা জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক।।
জরুরি বিভাগ আছে, অপারেশন এবং পর্যাপ্ত যন্ত্রপাতিও নেই। পাওয়া গেছে থিয়েটারও আছে। তবে লাইসেন্স নেই।

ডাক্তার অপরিচ্ছন্ন নোংরা কক্ষ ও মেয়াদ উত্তীণ রক্ত। অসততা আর অব্যবস্থার এমন চিত্র মিলেছে কুমিল্লা শহরের ‘সততা স্পেশালাইজড হসপিটালে’। আর সিলগালা করে দিয়েছে। একইসঙ্গে এক লাখ টাকা এ কারণে ভ্রাম্যমাণ আদালত হাসপাতালটি অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে।

রোববার বিকেল সাড়ে ৩টায় কুমিল্লা জেনারেল হাসপাতালের সামনে অবস্থিত সততা স্পেশালাইজড হসপিটালে ভ্রাম্যমাণ আদালত ম্যাজিস্ট্রেট কানিজ ফাতেমা। এ সময় উপস্থিত পরিচালনা করেন কুমিল্লা প্রশাসনের নির্বাহী ছিলেন সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিক্যাল অফিসার আবদুল কাইয়ুমসহ পুলিশের একটি টিম।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কানিজ ফাতেমা বলেন, ‘গত বছরও এই সততা হসপিটালের যারা মালিক তাদেরকে বলা হয়েছিল লাইসেন্স করার জন্য তারা তা করেনি।

‘এই হসপিটালে অনেক অনিয়ম। পর্যাপ্ত ডাক্তার নেই। যন্ত্রপাতি নেই। লাইসেন্স নেই। মেয়াদোত্তীর্ণ রক্ত পাওয়া গেছে। অপরিচ্ছন্ন কক্ষ। এসব কারণে হসপিটালটি সিলগালা করেছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা এই অভিযানে পুলিশ লাইন্স এলাকায় একজন ভুয়া ডাক্তারকে ধরতে ন্যাশনাল ডিজিটাল স্পেশালাইজড ডায়গনস্টিক সেন্টারে যাই। সেখানে গিয়ে ওই ভুয়া ডাক্তারকে পাইনি।

তবে ডায়গনস্টিক সেন্টারটিতে কোনো কার্যক্রম দেখতে পাইনি। তারা দালালের মাধ্যমে এখানে রোগী আনে। তারপর বাইরে থেকে পরীক্ষা করিয়ে আনে।

তবে এরা অনেক ডাক্তারের সাইনবোর্ড ব্যবহার করে। যাদের সাইনবোর্ড ব্যবহার করে তারা কেউ এখানে রোগী দেখেন না।

এসব অপরাধের কারণে ওই ডায়গনস্টিক সেন্টারটিও সিলগালা করা হয়েছে।

কুমিল্লা জেলার ডেপুটি সিভিল সার্জন নিসর্গ মেরাজ চৌধুরী বলেন, ‘ইতোমধ্যে আমরা ১৩৮ জন ভুয়া ডাক্তারের তালিকা তৈরি করেছি। অনিয়ম করা হসপিটাল ও ডায়গনস্টিক সেন্টারেরও তালিকা করা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করে আমরা এসব অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান অব্যহত রেখেছি।’

আরো দেখুন
error: Content is protected !!