২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৬ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

করোনা টেস্ট নেগেটিভ করার নামে কোটি টাকা প্রতারণা; ১৪ সদস্যকে গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক।।
বিদেশগামী যাত্রীদের করোনা টেস্ট নেগেটিভ ফল প্রাপ্তির আশ্বাস দিয়ে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র। এই চক্রের ১৪ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

এ সময় তাদের কাছ থেকে আত্মসাৎকৃত বিপুল পরিমাণ অর্থ ও প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত মালামাল জব্দ করা হয়। বৃহস্পতিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির মুখপাত্র কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, বুধবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে গোপন সংবাদে প্রথমে কুমিল্লা জেলার কোতয়ালী থানা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করা হয়।

এ সময় জসিম উদ্দিন, সুলতান মিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর ও ঢাকার সায়েদাবাদ, রমনা ও মতিঝিল এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে বেলাল হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়। বেলালের দেওয়া তথ্যে মতিঝিল এলাকা থেকে চক্রের সক্রিয় সদস্য আবুল হোসেন মো. আবদুল নুর, আলফাজ মিয়া, শামিম ও আহাম্মদ হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়।কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, তাদের দেওয়া তথ্যে মোবাইল সিমের যোগানদাতা ইমরান উদ্দিন মিলনকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরবর্তীতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় অভিযান পরিচালনা করে চক্রের অন্যতম হোতা সবুজ মিয়া, আব্দুর রশিদ, আব্দুল করিম চৌধুরী (১৩), আঙ্গুর মিয়া এবং মো. আলমগীর হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়। জব্দ করা হয় প্রায় ৭ লাখ টাকা।

কমান্ডার মঈন বলেন, প্রতারক চক্রের মূলহোতা গ্রেপ্তারকৃত বেলাল প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায়, গত বছরের মার্চ মাসে মধ্যপ্রাচ্যে যাওয়ার জন্য কুমিল্লা জেলার একটি হাসপাতালে করোনা টেস্ট করার পর অজ্ঞাত এক ব্যক্তি ওই হাসপাতালের ডাক্তার পরিচয় দিয়ে তার করোনা টেস্টের ফল পজিটিভ এসেছে বলে জানায়।

অজ্ঞাত ব্যক্তি দশ হাজার টাকার বিনিময়ে বেলালের করোনা টেস্টের ফল নেগেটিভ করার প্রতিশ্রুতি দিলে, সে চড়া মূল্যের টিকেট নষ্ট না করে ওই ব্যক্তিকে বিশ্বাস করে দশ হাজার টাকা দেয়।

পরবর্তীতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মোবাইলে এসএমএস এর মাধ্যমে করোনা পজিটিভ ফল প্রেরণ করে। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করলে ওই অজ্ঞাত পরিচয়ধারী কেউ হাসপাতালে কর্মরত নেই বলে জানতে পারে। পুনরায় এপ্রিল মাসে করোনা টেস্ট নেগেটিভ আসার পর বেলাল ওমানের উদ্দেশ্যে গমন করে। তবে মার্চ থেকে এপ্রিল পর্যন্ত বেলাল প্রতারণার প্রক্রিয়াটি নিয়ে ব্যাপক বিচার বিশ্লেষণ করে এবং প্রতারণার মাধ্যমে বিদেশগামী যাত্রীদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার রুপরেখা তৈরি করে। তবে তার বিদেশে গমনের নির্ধারিত তারিখ চলে আসায় সে তার এ পরিকল্পনা ঘনিষ্ঠ বন্ধু সবুজকে অবগত করে।

র‌্যাবের সংবাদ সম্মেলন

আরো দেখুন
error: Content is protected !!